| প্রচ্ছদ

বগুড়ার শেরপুরে বিয়ের প্রলোভনে কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ

শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি
পঠিত হয়েছে ৪৭ বার। প্রকাশ: ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ।

বগুড়ার শেরপুরে মোবাইলে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠার পর বিয়ের কথা বলে বাড়িতে ডেকে নিয়ে এক কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এই ঘটনায় ধর্ষণের শিকার ওই কলেজছাত্রী বাদি হয়ে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দেন।

তবে পুলিশ কোন কার্যকর পদক্ষেপ নেয়নি। এমনকি রহস্যজনক কারণে নিশ্চুপ রয়েছেন। ফলে ঘটনার পাঁচদিনেও অভিযোগটি এজাহার হিসেবে নথিভুক্ত করেননি।

এদিকে সিরাজগঞ্জের কান্দাপাড়া স্কুল এন্ড কলেজের একাদশ শ্রেণীতে পড়ুয়া ওই ছাত্রী প্রেমিক সবুজ মিয়ার বাড়িতে বিয়ের দাবিতে অনশন শুরু করেছেন। এমনকি বিয়ে করে তাকে স্ত্রীর মর্যাদা দেয়া না হলে বিষপানে আত্মহত্যা করবেন বলেও ঘোষণা দিয়েছেন।

অভিযোগে জানা যায়, প্রায় আড়াই বছর আগে উপজেলার ভবানীপুর ইউনিয়নের শেখর গ্রামের আব্দুস সালামের ছেলে সবুজ মিয়ার সঙ্গে সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার কালিয়া শাহীবাড়ী বিক্রম হোসেনের কলেজ পড়ুয়া মেয়ের মোবাইল ফোনের মাধ্যমে পরিচয় ঘটে। একপর্যায়ে তাদের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। এরই সূত্রধরে ১৩ সেপ্টেম্বর শুক্রবার সকালে সিরাজগঞ্জে যায় সবুজ।

একপর্যায়ে ওই কলেজ ছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে শেখর গ্রামের বাড়িতে এনে একাধিকবার ধর্ষণ করে সে। ভুক্তভোগী ওই কলেজ ছাত্রী জানান, প্রেমিক সবুজ তার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে দৈহিক মেলামেশা করলেও বিয়ে করতে তালবাহানা শুরু করেন। বিয়েতে চাপ দিলে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়ার জন্য তাকে মারধরও করা হয়।

একপর্যায়ে ঘটনাটি মোবাইল ফোনের মাধ্যমে পরিবারকে জানালে তারা এসে থানায় লিখিত অভিযোগ দেন।

শেরপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) বুলবুল ইসলাম বলেন, 'ঘটনাটি তদন্তে পুলিশের একজন উপ-পরিদর্শককে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে তিনি ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্তও করে এসেছেন। তাই অতি দ্রুততম সময়ের মধ্যেই আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।'

এদিকে অভিযোগটি থানায় দায়ের হওয়ার পর থেকেই প্রেমিক সবুজ পলাতক রয়েছে। তাই সবুজের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি। 

মন্তব্য