| প্রচ্ছদ

শিক্ষায় অবদানে সবচেয়ে দামি পুরস্কার পাচ্ছেন ফজলে হাসান আবেদ

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৪০ বার। প্রকাশ: ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ।

শিক্ষায় বিশেষ অবদানের জন্য বিশ্বের সবচেয়ে দামি আন্তর্জাতিক পুরস্কার ‘ইদান পুরস্কারে’ ভূষিত হয়েছেন বেসরকারি সংস্থা ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান স্যার ফজলে হাসান আবেদ। 

হংকংভিত্তিক ইদান প্রাইজ ফাউন্ডেশন শিক্ষাক্ষেত্রে গবেষণা ও উন্নয়নে অবদানের জন্য এ পুরস্কার দিয়ে থাকে।
বৃহস্পতিবার এক বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি জানিয়েছে ইদান প্রাইজ ফাউন্ডেশন। 

ইদান প্রাইজ নামে এই পুরস্কারের অর্থমূল্য প্রায় ৩৩ কোটি টাকা, যা নগদ ও প্রকল্প তহবিল হিসেবে সমান দুই ভাগে দেওয়া হবে।

জানা যায়, এখন পর্যন্ত ব্র্যাকের প্রাক-প্রাথমিক স্কুল থেকে শিক্ষাগ্রহণ করেছে ১ কোটি ২০ লাখেরও বেশি শিশু। এছাড়া ব্র্যাকের রয়েছে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়, কিশোর-কিশোরীদের জন্য বিভিন্ন শিক্ষামূলক কার্যক্রম এবং একটি বিশ্ববিদ্যালয়।

ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতার এ পুরষ্কার পাওয়ায় ইদান ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ড. চার্লস চেন ইদান বলেন, “জ্ঞানার্জন হলো এমন একটি বিষয় যা জাতি, ধর্ম, আর্থিক ও দেশের সীমানা অতিক্রম করে সমাজ ও ব্যক্তিজীবনে ইতিবাচক ভূমিকা রাখে।  আমি আশা করি সর্বোচ্চ মানের গবেষণা ও শিক্ষাক্ষেত্রে উন্নয়নের মাধ্যমে প্রতিটি দেশ এবং অঞ্চলই উপকৃত হতে পারে। আর এভাবেই একটি সুন্দর পৃথিবীর বিনির্মাণ সম্ভব।”

বর্তমানে বাংলাদেশ, উগান্ডা এবং তাঞ্জানিয়ায় বিশেষ শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করছে ব্র্যাক। সংস্থাটির ইন্সটিটিউট অব এডুকেশনাল ডেভলপমেন্ট কার্যক্রমের আওতায় খেলাধুলাভিত্তিক ‘হিউম্যানিটেরিয়ান প্লে ল্যাব’ কার্যক্রমের মাধ্যমে শরণার্থী শিশুদের শিক্ষা দেওয়ার পাশাপাশি ভীতি দূর করতে কাজ করছে।

ইদান পুরস্কার কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানিয়ে ফজলে হাসান আবেদ বলেন, “দৃশ্যমান উন্নয়নের জন্য শৈশবের শুরুতে শিশুদের শিক্ষা দেওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ৩-৫ বছর বয়সী শিশু বিশেষ করে যারা শরণার্থী শিবিরে থাকে তাদের জন্য খেলাধুলাভিত্তিক শিক্ষা কার্যক্রম নিয়ে গবেষণা করছে ব্র্যাক। আমি মনে করি বিশ্ব নেতৃবৃন্দ বিষয়টির গুরুত্ব অনুধাবন করতে পারবেন।”

এই পুরস্কারের স্বীকৃতি স্বরূপ আগামী ডিসেম্বরে হংকংয়ে অনুষ্ঠিতব্য এক অনুষ্ঠানে স্যার ফজলে হাসান আবেদকে দেওয়া হবে একটি গোল্ড মেডেল এবং ৩৩ কোটি টাকা। যার অর্ধেক ব্যয় হবে প্রকল্পের অনুদান হিসেবে।

এই পুরস্কারের অর্থ বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নয়ন এবং নতুন প্লে ল্যাব প্রতিষ্ঠায় ব্যয় করবেন বলে জানিয়েছেন ফজলে হাসান।

হংকংভিত্তিক স্বাধীন প্রতিষ্ঠান ইদান ফাউন্ডেশন শিক্ষাক্ষেত্রে গবেষণা ও উন্নয়নে অবদানের জন্য পুরস্কার দিয়ে থাকে।  এ বছর গবেষণার জন্য পুরস্কার পাচ্ছেন ক্যাম্ব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের নিউরোসায়েন্সের অধ্যাপক উষা গোস্বামী।

মন্তব্য