| প্রচ্ছদ

ঢাবিতে ছাত্রদল কর্মীদের পিটুনি ছাত্রলীগের, আহত ৩০

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৬১ বার। প্রকাশ: ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রের (টিএসসি) সামনে ছাত্রদল নেতাকর্মীদের মারধর করেছে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। এসময় তিন সাংবাদিকও মারধরের শিকার হন। হামলায় ৩০ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন বলে দাবি করেছে ছাত্রদল।

সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সঞ্জিত দাসের নেতৃত্বে এ  হামলার ঘটনা ঘটে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ভর্তি ছাত্রদল নেতাকর্মীরা হলেন- খোরশেদ আলম সোহেল, রুবেল, ফাহিম, ফিরোজ আলম, নয়ন, শাহিন, অর্নব, সজল, মাসুম, মাহবুব আলম ও মশিউর।

এসময় পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে তিন সাংবাদিককে মারধর ও মোবাইল কেড়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। তারা হলেন- স্টুডেন্ট জার্নালের বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি আনিছুর রহমান, বিজনেস বাংলাদেশের আফসার মুন্না ও প্রতিদিনের সংবাদের রাহাতুল ইসলাম রাফি।

ছাত্রদল নেতাকর্মীরা জানান, ছাত্রদল ঢাবি সাধারণ সম্পাদকের নেতৃত্বে ক্যাম্পাসের হাকিম চত্বরে আসলে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা তাদের পেছন থেকে ধাওয়া করে। পরে তারা ক্যাম্পাস ছাড়তে গেলে কয়েকজনকে ধরে বেধড়ক মারধর করা হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ছাত্রদল কর্মী বলেন, ‘প্রতিদিনের মতো আজও আমরা হাকিম চত্বরে আড্ডা দিতে আসি। হাকিমে আসলে ছাত্রলীগের কর্মীরা আমাদের সেখান থেকে চলে যেতে বলে।’

তিনি বলেন, ‘পরে আমরা সেক্রেটারিসহ টিএসসির ডাস চত্বরে আসি। সেখানে আসার কিছুক্ষণ পরে আমাদের ওপর পেছন থেকে অতর্কিত হামলা চালানো হয়। এতে আমাদের অনেক নেতাকর্মী আহত হন। আহতদের কয়েকজনকে ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।’

পরে টিএসসিতে এক সংবাদ সম্মেলনে ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল বলেন, ‘ঢাবি ছাত্রলীগ সভাপতি সঞ্জিতের নেতৃত্বে আমাদের নেতাকর্মীদের ওপর হামলা করা হয়েছে। এতে ৩০ নেতাকর্মী আহত হন। আহতদের আটজনের অবস্থা গুরুতর।’

হামলার সঙ্গে নিজের সম্পৃক্ততা অস্বীকার করে ঢাবি ছাত্রলীগ সভাপতি সঞ্জিত দাস বলেন, ‘হামলার সময় আমি বিশ্ববিদ্যালয় লাইব্রেরির ওয়াশরুমে ছিলাম। অতি উৎসাহীরা একাজ করেছে। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

মন্তব্য