| প্রচ্ছদ

রাণীনগরে প্রকাশ্য দিবালোকে নির্মানাধীন বাড়ি ভেঙ্গে দিলো সন্ত্রাসীরা!

কাজী আনিছুর রহমান,রাণীনগর (নওগাঁ)
পঠিত হয়েছে ২১৬ বার। প্রকাশ: ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ।

নওগাঁর রাণীনগরে বাড়ীতে প্রবেশের রাস্তাকে কেন্দ্র করে ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীদের দিয়ে প্রকাশ্য দিবালোকে মুন্টু প্রাং নামের এক ব্যক্তির ইটের নির্মানাধীন বাড়ি ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়েছে প্রতিপক্ষ শাদ আহম্মেদ স্বপন হোসেন। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার গোনা ইউনিয়নের ঝিনা গ্রামে।এঘটনায় ওই এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।


জানা গেছে, ঝিনা গ্রামের লাল মোহাম্মদের ছেলে মুন্টু প্রাং তার পৈত্রিক সম্পত্তিতে আরসিসি পিলার দিয়ে ইটের বাড়ি নির্মাণ শুরু করে। ইতিমধ্যেই নির্মাণের কাজ প্রায় শেষের দিকে। বাড়ি নির্মাণের শুরুতে পর্যাপ্ত জায়গা ছেড়ে দিয়ে কাজ শুরু করলেও প্রতিবেশী মৃত মজিবর মাস্টারের ছেলে প্রতিপক্ষ শাদ আহম্মেদ স্বপন তার বাড়িতে যাওয়া-আসার জন্য চার-পাঁচ হাত জায়গা ছেড়ে বাড়ি নির্মাণ করতে বলে। এনিয়ে গ্রামে বেশ কয়েকবার বৈঠক হলে প্রতিপক্ষ স্বপনের অনায্য দাবি থেকে সরে এসে মিল-মহব্বতে উভয়কে বসবাসের পরামর্শ দেন মুরব্বিগণরা । সেই মোতাবেক মুন্টু তার বাড়ি নির্মাণ কাজ চালিয়ে যান।

স্থানীয়রা জানান, স্বপন বাড়ী নির্মানের সময় এক ইঞ্চি জায়গা না ছেরে বাড়ী নির্মান করে। তার পরেও মুন্টু কিছু জায়গা ছেরে দিয়ে নির্মান করছে। এর জ্বের ধরে বৃহস্পতিবার মুন্টুর বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে স্বপনের নেতৃত্বে দুপুরের দিকে দেশীয় বিভিন্ন অস্ত্র নিয়ে ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে আরসিসি পিলার গ্যান্ডার মেশিন দিয়ে কেটে ও ভাড়ি হামবল দিয়ে ইটের দেয়াল ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয়। খবর পেয়ে বাড়ির মালিক মন্টুসহ তার পরিবারের লোকজন ঘটনাস্থলে এসে দেখতে পাই তাদের নির্মানাধীন বাড়ি ভেঙ্গে দিয়ে স্বপনসহ ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীরা চলে গেছে বলে মুন্টু ও তার পরিবারের লোকজন জানান।


বাড়ির মালিক মুন্টু’র ভাই লেবু প্রাং জানান, এদিন আমরা একটি বিয়ের দাওয়াত খেতে স্বপরিবারে আত্মীয়ের বাড়ীতে গিয়েছিলাম। আর এই সুযোগে স্বপন তার ভারাটিয়া লোকজন এনে বাড়ী ভেঙ্গে দিয়েছে।

 
এ ব্যাপারে শাদ আহম্মেদ স্বপন বলেন, আমার বাড়ীর মুল দরজার সামনে একশত জায়গা কিনা আছে । আমি ওই জায়গা ছেরে তাদেরকে বাড়ী নির্মান করতে বলেছি । তারা শোনেনি। বিষয়টি নিয়ে আদালতের স্বরনাপন্ন হলে আদালত থেকে ওই জায়গার উপর ১৪৪ও ১৪৫ ধারা জারি করা আছে । এর পরেও তারা নিষেধাঙ্গা অমান্য করে বাড়ী নির্মান অব্যাহত রেখেছে। যার কারনে ওই জায়গা মুক্ত করতে ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে।

 
রাণীনগর থানার ওসি মো: জহুরুল হক বলেন, খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে রয়েছি । এঘটনায় আইগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

মন্তব্য