| প্রচ্ছদ

শেরপুরে বিএইচপি বহুমুখি সমবায় সমিতির নামে লাখ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি
পঠিত হয়েছে ১৪৮ বার। প্রকাশ: ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ।

বগুড়ার শেরপুরে বি.এইচ. পি বহুমুখি সমবায় সমিতি লিমিটেডের নামের নেয়া লাখ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে।  শনিবার  বিকেলে শহরের স্থানীয় বাসষ্ট্যান্ডস্থ প্রেসক্লাব কার্যালয়ে আয়োজিত জনাকীর্ণ সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন ওই সংগঠনের সঞ্চয়ী সদস্যরা। একইসঙ্গে তাদের জমা রাখা সঞ্চয়ের টাকা ফেরত দেয়াসহ টাকা আত্মসাতের ঘটনায় জড়িতদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তিও দাবি করেন তারা।

সংবাদ সম্মেলনে ক্ষতিগ্রস্থ সদস্যদের পক্ষে লিখিত বক্তৃতায় উপজেলার খামারকান্দি এলাকার বাসিন্দা মো. আব্দুল মোমিন বলেন, উপজেলার খামারকান্দি ও জয়নগর গ্রামের নাহিদুল ইসলাম নিপুন, আনোয়ার হোসেন, ইসাহাক হোসেন, আবু সাঈদ, মাহবুবুর রহমান ও মকিম হোসেন তাদের যৌথ পরিচালনায় বি.এইচ.পি বহুমুখী সমবায় সমিতি লিমিটেড নামের একটি সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন। একইসঙ্গে স্থানীয় খামারকান্দি বাজার সংলগ্ন আব্দুস সাত্তারের বাড়িটি ভাড়া নিয়ে বেশ কয়েক বছর ধরে ওই সংগঠনের কার্যক্রম চালিয়ে আসছেন। পাশাপাশি সমবায় অধিদপ্তর থেকে রেজিস্ট্রেশনও নেয়া হয়। যার রেজি: নং-১১১/২০০৯।


জনাব আব্দুল মোমিন অভিযোগ করে বলেন, তাদের মতো গ্রামের খেটে খাওয়া অসংখ্য সাধারণ মানুষকে ওই সংগঠনের সঞ্চয়ী সদস্য করেন। অধিক মুনাফার কথা বলে তাদের প্রত্যেক সদস্যের নিকট থেকে এককালীন, মাসিক, সাপ্তাহিক ও দৈনিক সঞ্চয়ের নামে লাখ লাখ টাকা আদায় করেছেন। নির্দিষ্ট সময়ে লভ্যাংশসহ সঞ্চয়ের টাকা ফেরত দেয়ার অঙ্গিকারও করেন তারা। কিন্তু নির্দিষ্ট সময় পার হলেও তাদের সঞ্চয়ের টাকা ফেরত দিচ্ছেন না। এমনকি টাকা ফেরত দিতে টালবাহানা ও সময়ক্ষেপন করছেন। সংগঠনের কর্তাদের মোবাইল ফোনেও যোগাযোগ করে পাওয়া যাচ্ছে না। অধিকাংশ সময় ফোন বন্ধ করে রাখছেন। এছাড়া কার্যালয়েও তালাবদ্ধ করে রাখা হয়েছে। শুনছি সংগঠনের কর্তারা তাদের জমা রাখা লাখ লাখ টাকা আত্মসাত করেছেন। এ অবস্থায় তাদের সঞ্চয়ের টাকা নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েছেন। তাই সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে টাকা ফেরত দেয়াসহ টাকা আত্মসাতের ঘটনায় জড়িতদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান তিনি।

এসময় সংগঠনের ভুক্তভোগী অন্তত অর্ধশত নারী-পুরুষ সদস্য উপস্থিত ছিলেন। এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বিএইচপি বহুমুখি সমবায় সমিতি লিমিটেডের সভাপতি নাহিদুল ইসলাম নিপুন বলেন, সংগঠনের পরিচালকদের মধ্যে বিরোধের কারণে একটু সমস্যা হয়েছে। তবে জমা রাখা কারো টাকা নয়ছয় হবে না। সময় সাপেক্ষে সব সদস্যদের সঞ্চয়ের টাকা ফেরত দেয়া হবে বলে দাবি করেন তিনি।
 

মন্তব্য