| প্রচ্ছদ

ছাত্রীকে যৌন হয়রানি: জাবির সেই শিক্ষকের বিরুদ্ধে ‘প্রাথমিক ব্যবস্থা’

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ২৬ বার। প্রকাশ: ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রীকে যৌন হয়রানির ঘটনায় অভিযুক্ত সরকার ও রাজনীতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সানোয়ার সিরাজকে সকল প্রশাসনিক ও একাডেমিক কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। তদন্ত কার্যক্রম শেষ হওয়া পর্যন্ত এই আদেশ কার্যকর থাকবে এবং দোষী প্রমাণিত হলে চূড়ান্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। খবর দেশ রুপান্তর 

রবিবার এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার রহিমা কানিজ।

রহিমা কানিজ বলেন, ‘কমিটি সুপারিশ করেছে সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে যেন অভিযুক্ত শিক্ষককে সকল একাডেমিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম থেকে বিরত রাখা হয়। উপাচার্য এই সুপারিশ অনুমোদন করেছেন।’

এর আগে গত ১৯ সেপ্টেম্বর সরকার রাজনীতি বিভাগের সভাপতি বরাবরে শিক্ষক সানোয়ার সিরাজের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির লিখিত অভিযোগ দেন বিভাগটির স্নাতকোত্তর শ্রেণির একজন ছাত্রী। বিভাগ থেকে গত বুধবার অভিযোগপত্রটি যৌন নিপীড়ন বিরোধী সেলে হস্তান্তর করা হয়। রোববার এ নিয়ে জরুরি সভায় বসে সেল।

সেলের প্রধান অধ্যাপক রাশেদা আখতার বলেন, ভর্তি পরীক্ষার ভেতর তো আমরা নিয়মিত সভায় বসতে পারি না। ফলে আমরা এটা নিয়ে রবিবার জরুরি ভিত্তিতে বসেছি এবং তাকে প্রশাসনিক ও একাডেমিক কার্যক্রম থেকে বিরত রাখার সুপারিশ করেছি। এটাকে প্রাথমিক ব্যবস্থা বলা যেতে পারে। শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠলে নিয়ম অনুযায়ী এ ব্যবস্থাই নেয়া হয়। যাতে তদন্তে কোন প্রভাব না পড়ে এবং অভিযোগকারী শিক্ষার্থীর সুরক্ষা নিশ্চিত হয়।

এদিকে অভিযুক্ত শিক্ষকের দ্রুত বিচার দাবিতে রোববার দুপুরে উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের প্ল্যাটফর্ম ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ ষষ্ঠ দিনের মতো কালো পতাকা প্রদর্শনের কর্মসূচি পালন করে। সেখান থেকেও সানোয়ার সিরাজের বিরুদ্ধে সুষ্ঠু তদন্ত ও দ্রুত বিচার দাবি করা হয়।

মন্তব্য