| প্রচ্ছদ

ভুয়া প্রতিষ্ঠান খুলেছিল

চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা: বগুড়ায় নওগাঁর এক সাংবাদিকসহ ৫জন গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার
পঠিত হয়েছে ৬০৬ বার। প্রকাশ: ০৫ অক্টোবর ২০১৯ ।

ভুয়া প্রতিষ্ঠান খুলে উচ্চ বেতনে চাকরি দেওয়ার কথা বলে চাকরি প্রার্থীদের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে বগুড়া পুলিশ নওগাঁর এক সাংবাদিকসহ ৫ ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে। শুক্রবার সকালে গ্রেফতারের পর রাতে তাদের বিরুদ্ধে সদর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। গ্রেফতার পাঁচ জনের মধ্যে দু’জন নওগাঁর বাসিন্দা এবং বকি ৩জনের বাড়ি বগুড়ায়। পুলিশ বলছে, তারা সকলেই নওগাঁর ‘হরিরামপুর দুঃস্থ মহিলা বহুমুখী সংস্থা (HDMBS)’ নামে অনুমোদনহীন প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সম্পৃক্ত।
গ্রেফতার সেই পাঁচজন হলেন- বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল ‘এসএ টিভি’র নওগাঁ প্রতিনিধি নওগাঁ জেলার পার নওগাঁর মৃত ময়েজ উদ্দিনের ছেলে মামুনুর রশিদ বাবু (৫৫), একই জেলার বদলগাছি উপজেলার বেগুন জোয়ার গ্রামের মফিজ উদ্দিনের ছেলে তৌহিদুল ইসলাম (৪২), বগুড়া সদরের ধরমপুরের মৃত হায়দার আলীর ছেলে হাফিজার রহমান (৫৫), বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলার মোড় গ্রামের মৃত দলিল উদ্দিনের ছেলে মিজানুর রহমান (৪৮) ও বগুড়ার শেরপুর উপজেলার আমিনপুর গ্রামের মোদাচ্ছের আলীর ছেলে এম এ মালেক (৫৫)। তাদের বিরুদ্ধে প্রতারণা ও বিশ্বাস ভঙ্গের অভিযোগ আনা হয়েছে। শনিবার দুপুর ২টায় এ রিপোর্ট লেখার সময় তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানোর জন্য প্রস্তুতি চলছিল।
মামলার বাদী চাকরি প্রত্যাশী বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার দোপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুস সোবহানের ছেলে ফরহাদ আলম এজাহারে অভিযোগ করেছেন আসামীরা নওগাঁর হরিরামপুর দুঃস্থ মহিলা বহুমুখী সংস্থা
(HDMBS)-এর নামে ১৪টি পদে ৫৮৮জন লোক নিয়োগের জন্য গত ২২ আগস্ট বগুড়া থেকে প্রকাশিত দৈনিক করতোয়া পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। ওই বিজ্ঞাপনে সর্বনিম্ন ১০ হাজার থেকে সর্বোচ্চ ৮৫ হাজার টাকা বেতনে লোক নিয়োগের কথা বলে ৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান কার্যালয় নওগাঁর পার নওগাঁ এলাকায় মমতাজ শপিং সেন্টারে প্রকল্প পরিচালক বরাবর দরখাস্ত আহবান করে। 
মামলার বাদী ফরহাদ আলম জানান, চাকরি পাবার আশায় তিনিসহ প্রায় সহস্রাধিক ব্যক্তি সেখানে আবেদন করেন। এরপর তাকেসহ প্রায় তিন শতাধিক আবেদনকারীকে ফোন দিয়ে ৪ অক্টোবর শুক্রবার সকাল ৯টার মধ্যে বগুড়া সদরের নুনগোলা ইউনিয়ন পরিষদের সামনে প্রতিষ্ঠানটির স্থানীয় কার্যালয়ে সাক্ষাতের জন্য হাজির থাকতে বলা হয়। নির্দেশনা অনুযায়ী তিনি শুক্রবার সকালে নুনগোলা ইউনিয়ন পরিষদের সামনের একটি বাড়ির দোতলায় ‘হরিরামপুর দুঃস্থ মহিলা বহুমুখী সংস্থা
(HDMBS)’ লেখা একটি কাপড় ঝুলতে দেখেন এবং সেখানে চাকরি প্রার্থীদের ভিড়ও দেখতে পান। এক পর্যায়ে তাকে সাক্ষাৎকার গ্রহণের জন্য ভেতরে ডেকে নেওয়া হয়। তবে চাকরি দেওয়ার কথা বলে তার কাছ থেকে ৫ হাজার নেওয়া হয়। পরে তিনি খবর নিয়ে জানতে পারেন অন্য প্রার্থীদের কাছ থেকেও ২ হাজার এবং ১ হাজার টাকা করে তারা নিয়েছে। এতে তিনিসহ অন্য চাকরি প্রার্থীদের সন্দেহ হলে তারা একজোট হয়ে সাক্ষাৎকার গ্রহণকারীদের কাছ থেকে চাকরি প্রদানের প্রমাণস্বরূপ নিয়োগপত্র দাবি করেন। তখন তারা তালবাহানা শুরু করেন। এতে প্রতারণার বিষয়টি জানাজানি হয়ে সেখানে হট্টগোল সৃষ্টি হয়। পরে জরুরী সেবা ৯৯৯ নম্বরে ফোন করলে দুপুর ২টার দিকে বগুড়া সদর থানার সাব ইন্সপেক্টর খোরশেদ আলম ঘটনাস্থলে যান।
বগুড়া সদর থানার সাব ইন্সপেক্টর খোরশেদ আলম জানান, তিনি ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করার পর ‘হরিরামপুর দুঃস্থ মহিলা বহুমুখী সংস্থা
(HDMBS)’ নামে ওই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত উল্লেখিত পাঁচজনকে গ্রেফতার করেন এবং বিকেল ৫টার দিকে থানায় নিয়ে আসেন।
বগুড়া সদর থানার ওসি এস এম বদিউজ্জামান জানান, কথিত ওই প্রতিষ্ঠানের কোন অনুমোদন নেই। তিনি বলেন, চাকরি প্রার্থীদের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার উদ্দেশ্যেই তারা পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দেয়।

 

মন্তব্য