| প্রচ্ছদ

কুষ্টিয়ায় প্রতিরোধের মুখে বুয়েট উপাচার্য, আবরারের মায়ের সঙ্গে দেখা না করেই এলাকা ত্যাগ

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ১৮ বার। প্রকাশ: ০৯ অক্টোবর ২০১৯ ।

উপাচার্য সাইফুল ইসলামনিহত আবরার ফাহাদের গ্রামের বাড়ি কুষ্টিয়ার কুমারখালীর রায়ডাঙ্গায় গিয়ে স্থানীয় লোকজনের প্রতিরোধের মুখে পড়েন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) উপাচার্য সাইফুল ইসলাম। আজ বুধবার বিকেল পাঁচটার দিকে তিনি জেলা প্রশাসকের গাড়িতে করে ওই এলাকা ত্যাগ করেন।
খবর প্রথম আলো অনলাইন ।
এর আগে বিকেল সাড়ে চারটার দিকে জেলা প্রশাসকের গাড়িতে করে আবরারের কবর জিয়ারত করতে রায়ডাঙ্গায় যান উপাচার্য। তিনি সেখানে আবরারের বাবা বরকত উল্লাহ ও ভাই আবরার ফায়াজসহ সবাই মিলে কবর জিয়ারত করেন। পরে আবরারের ভাই ও বাবার প্রশ্নবানে জর্জরিত হন উপাচার্য। তাঁদের জিজ্ঞাসা ছিল, উপাচার্য কেন ওই হত্যাকাণ্ডের পরপর সেখানে উপস্থিত হননি। এখন কেন এসেছেন? একপর্যায়ে উপস্থিত সাংবাদিকেরা উপাচার্যের কাছে জানতে চান, তাঁর পদত্যাগের দাবি উঠেছে, তিনি পদত্যাগ করবেন কি না। জবাবে উপাচার্য বলেন, তিনি কোনো অন্যায় করেননি। তাই পদত্যাগের প্রশ্নই ওঠে না। 

এরপর বিকেল পাঁচটার দিকে আবরারের মা রোকেয়া খাতুনের সঙ্গে দেখা করার জন্য রওনা দেন উপাচার্য। একই সড়কের পাশে আবরারের কবর ও পৈতৃক ভিটা। কুমারখালী থেকে যেতে প্রথমে কবরস্থান পড়ে। পরে আধা কিলোমিটারের মাথায় ওই বাড়ি। কিন্তু উপাচার্যের যাওয়ার কথা শুনে স্থানীয় শত শত নারী-পুরুষ আবরারদের গ্রামের বাড়ির সামনের সড়কে বিক্ষোভ শুরু করে। এ সময় স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীদের উপাচার্যকে ঘিরে থাকতে দেখা গেছে। এই পরিস্থিতিতে আবরারের মায়ের সঙ্গে দেখা না করে উপাচার্য পুলিশ প্রহরায় জেলা প্রশাসকের গাড়িতে করে রায়ডাঙ্গা গ্রাম ছেড়ে যান।

মন্তব্য