বগুড়ায় চালের বাজারে অস্থিরতা

অরুপ রতন শীল
প্রকাশ: ০৯ অগাস্ট ২০২২ ২০:৩৩ ।
বিশেষ
পঠিত হয়েছে ৬৭ বার।

জ্বালানি তেলের দামের সাথে পরিবহন খরচ বাড়ায় বগুড়ায় চালের বাজার ঊর্ধ্বমুখী।  গত ৫দিনের ব্যবধানে সব ধরনের চালের দাম ২ থেকে ৩ টাকা বেড়েছে।

 

পাইকারি বাজা‌রে না‌জিরশাইল গত সপ্তা‌হে ৬২ থে‌কে ৬৪টাকা থাকলেও আজকে ৬৮ থে‌কে ৭০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। মি‌নি‌কেট ৬৪  থেকে ৬৬ টাকা, যা ছিল ৬২ থেকে ৬৪ টাকা। আটাশ চাল ৫৬ থেকে ৫৮ টাকা, গত সপ্তা‌হে যার দাম ছিল ৫২ থেকে ৫৪ টাকা। কাটারিভোগ চালের দাম ৬৮ থেকে ৭০ টাকা থাকলেও এখন ৭২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।  রণজিৎ চাল পাইকারী বাজারে বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৫২টাকা। যা গত সপ্তাহে ছিল ৪৭টাকা। এছাড়া ২৯ জাতের ধানের চাল গত সপ্তাহে ৫০ থেকে ৫২ টাকা দাম থাকলেও এখন বিক্রি হচ্ছে ৫৪ থেকে ৫৬টাকায়। 

 

পাইকা‌রি বাজার থে‌কে খুচ‌রো বাজা‌রে এসব চা‌ল বি‌ক্রি হয় ৩ থে‌কে ৫ টাকা বে‌শি কে‌জি‌তে।

 

মঙ্গলবার শহরের ফতেহ আলী ও গোদারপাড়ার  পাইকা‌রি ও খুচরা চাল ব্যবসায়ী এবং ক্রেতা‌দের স‌ঙ্গে কথা ব‌লে এসব তথ্য জানা যায়।

 

ফতেহ আলী বাজারের পাইকা‌রি চাল ব্যবসায়ী শ্রীকৃষ্ণ চাউল ভান্ডারের মিন্টু বলেন, 'গত সপ্তাহের ব্যবধানে সব ধরনের চালের দাম কেজিতে ২ থেকে ৩ টাকা বেড়েছে। মি লমা‌লিকদের কাছে বে‌শি দা‌মে কিনে, বে‌শি দা‌মে বে‌ঁচি। এখানে কোনো কারসাজির সুযোগ নেই।'

 

 

 

জাহিদ হাসান ব্রাদার্সের  জামিল উদ্দিন ব‌লেন, 'জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার কারণে  মিলমা‌লিকরা চালের দাম বাড়ানোর কারণে বাজারেও দাম বেড়েছে। যখন তখন খেয়াল খু‌শিম‌তো যা‌তে এরা চা‌লের দাম বাড়া‌তে না পা‌রে, সেজন্য এদের‌কে আটকা‌নোর পথ একটাই‌; সরকা‌রিভা‌বে ভা‌লো চাল আমদানি করা এবং এদের মূ‌ল্যের চে‌য়ে কম মূ‌ল্যে সে চাল বাজা‌রে ছে‌ড়ে দেওয়া।'

 

 

গোদারপাড়ার চাল ব্যবসায়ী সুমন প্রামাণিক বলেন, 'গত ৫দিন ধরে চালের দাম বেড়েছে। পরিবহন খরচ বেড়ে যাওয়ায় চালের বাজারে এমন অস্থিরতা। যে অবস্থা দেখছি তাতে মনে হচ্ছে সামনের দিনগুলোতে চালের দাম আরও বাড়বে।'

 

তিনি আরও বলেন, 'আমরা পাইকারীতে যে চাল বিক্রি করছি সেটি খুচরা ব্যবসায়ীরা আরও ৩ থেকে ৫ টাকা বেশি দামে বিক্রি করছে।'

 

বগুড়া জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মোহাম্মদ আশ্রাফুজ্জামান  পুণ্ড্রকথাকে ব‌লেন,' মূলত তেলের দাম বাড়ার কারণে ব্যবসায়ীরা চালের দাম বাড়ানোর সুযোগ নিচ্ছে। আমরা গোপনে নজর রাখছি। আমাদের অভিযান চলমান রয়েছে। আশা করছি সপ্তাহ খানিকের মধ্যে চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে আসবে।'