| প্রচ্ছদ

ভারত-পাকিস্তান মহারণেও থাকছে বৃষ্টি!

পুণ্ড্রকথা ডেস্ক
পঠিত হয়েছে ৬৩ বার

বিশ্বকাপের সবচেয়ে প্রত্যাশিত দ্বৈরথে মুখোমুখি হচ্ছে ভারত ও পাকিস্তান। এমনিতে দেখা হয় না দল দুটির। নতুন করে কাশ্মির ইস্যুতে সৃষ্ট উত্তেজনা দ্বৈরথটাকে দিয়েছে ভিন্নমাত্রা। তাই বিশ্বকাপের মতো মঞ্চে দল দুটির মহারণ মানে রোমাঞ্চ-উত্তেজনার চেয়েও বেশি কিছু। ম্যানচেস্টারে আজ বিকাল সাড়ে ৩টায় মুখোমুখি হবে দুই দল। দেখাবে স্টার স্পোর্টস।   

বিশ্বকাপের চরম আকাঙ্ক্ষিত এই ম্যাচটার একটি পরিসংখ্যানই বলে দেয় সবকিছু। ম্যানচেস্টারের এই ম্যাচকে ঘিরে টিকিট আবেদন পড়েছিল ৭ লাখের বেশি! বোঝাই যাচ্ছে নির্ধারিত আসনসংখ্যার বাইরে এই ম্যাচের দিকে চোখ থাকবে কতগুলো।

অবশ্য বিশ্বকাপে দুই দলের প্রতিদ্বন্দ্বিতার ঝাঁজ নিয়ে প্রতিবারই আলোচনা হয় কয়েক দফা। কিন্তু সেই আলোচনার পর জয়ের পাল্লাটা ভারি থেকেছে ভারতের দিকেই। শেষ ৫ ওয়ানডের ৪টিতেই জয়ী ভারত। আবার বিশ্বকাপে পাকিস্তানের কাছে ভারত গেরো মানেই যেন অসম্ভব কিছু। যা এখনও খুলতে পারেনি তারা! অবশ্য এত আয়োজন ভেস্তে যেতে পারে বৃষ্টি নামলে। কারণ আজকের ম্যাচেও যে চোখ রাঙানি দিচ্ছে বৃষ্টি।

এমন ম্যাচকে ঘিরে বাইরে উত্তেজনার রেণু উড়লেও, কোহলির কাছে ম্যাচটি পেয়েছে সাধারণের মর্যাদা। বাইরের উত্তেজনা, চাপ এসব নিয়ে বারবার প্রশ্ন ছুড়ে দেওয়া হলেও কোহলি পুরো সংবাদ সম্মেলনে ছিলেন পেশাদার, ‘আমরা ভালো করি আর খারাপ করি, যাই হোক এখানেই সবকিছু শেষ হয়ে যাচ্ছে না। টুর্নামেন্টে এখনও অনেক পথ বাকি।’ আবহাওয়া নিয়ে প্রশ্ন করা হলে কোহলির উত্তর ছিল, ‘আবহাওয়া আমাদের হাতে নয়। তবে দেখতে হবে যতটুকু ম্যাচ হাতে পাবো মানসিকভাবে সব উজাড় করে দিতে হবে আমাদের।’

অপর দিকে পাকিস্তান কোচ মিকি আর্থার ভিন্নভাবে প্রেরণা দিচ্ছেন তার শিষ্যদের। ম্যাচটি জিতলেই তারা দেশের কাছে হিরো হয়ে যাবেন−এমন মন্ত্র দিচ্ছেন সরফরাজদের, ‘ছেলেদের সাজঘরে বলেছি এই ম্যাচের একটি মুহূর্তই তোমাদের ক্যারিয়ারের মানেটা দাঁড় করাবে। তোমরা আগামীতে হয়তো হিরো হয়ে যেতে পারো। তোমরা অবিশ্বাস্য কিছু করে দেখাও, তোমাদের মনে রাখা হবে আজীবন।’

মন্তব্য