বিএফএফ-সমকাল

নওগাঁয় জাতীয় বিজ্ঞান বির্তক উৎসব অনুষ্ঠিত

নওগাঁ প্রতিনিধি
প্রকাশ: ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১১:৩৮ ।
প্রচ্ছদ
পঠিত হয়েছে ১৫০ বার।

শুক্রবার নওগাঁয় উৎসবমুখর পরিবেশে”বির্তক মানেই যুক্তি,বিজ্ঞানে মুক্তি” এই প্রতিপাদ্য নিয়ে প্রানবন্ত বির্তক উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিএফএফ-সমকালের উদ্যোগে জেলা সুহৃদ সমাবেশ ”জাতীয় বিজ্ঞান বির্তক উৎসব,২০২১” এর আয়োজন করে। নওগাঁ জেলা প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে শহরের ঐতিহ্যবাহি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নওগাঁ কেডি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়,পিএম বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, নামাজগড় গাউসুল আজম কামিল মাদ্রাসা,চকএনায়েত উচ্চ বিদ্যালয়,বাচারীগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়,জিলা স্কুল ও হাট-নওগাঁ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিযোগিদের মধ্যে প্রানবন্ত যুক্তিতর্ক অনুষ্ঠিত হয়। ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনার মধ্যে যুক্তি তর্কের লড়াইয়ে অংশ নেয়া এই ৮স্কুলের মধ্যে নওগাঁ কেডি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় চাম্পিয়ন এবং নামাজগড় গাউসুল আজম কামিল মাদ্রাসা নওগাঁ রার্নাস আপ হওয়ার গৌরব অর্জন করে। প্রগিযোগিতায় শ্রেষ্ঠ বক্তা নির্বাচিত হয় নামাজগড় গাউসুল আজম কামিল মাদ্রাসার দশম শ্রেনীর শিক্ষার্থী বিতার্কিক মোঃ আরমান হোসেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে বিজয়ী ও বিজিতদের হাতে সনদ ও ক্রেষ্ট তুলে দেন জেলা তথ্য অধিদপ্তরের উপপরিচালক আবু সালেহ মোঃ মাসুদুল ইসলাম।

ওইদিন সকাল ১০.০০টায় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে জাতীয় স্গংীতের মধ্য দিয়ে আনুষ্টানিকভাবে এই প্রতিযোগিতার উদ্ধোধন করেন নওগাঁ সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর শরিফুল ইসলাম খাঁন। চুড়ান্ত পর্বের যুক্তি তর্কের লড়াইয়ে অংশ নেয় নওগাঁ কেডি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের বিতার্কিক সাদাকাত রাফি,মোঃ ওয়ালিউল্লাহ,ও কৌশিক সাহা এবং নামাজগড় মাদ্রাসার মোঃ আরমান হোসেন,মোহতাসিম কবির সাদিক ও মুশফিকুল ইসলাম।

বির্তক প্রতিযোগিতায় সঞ্চালকের দায়িত্ব পালন করেন জেলা সুহৃদ সমাবেশের সাধারণ সম্পাদক                                         আবদুল্লাহ আল রাফি সরোজ। বিচারক ছিলেন নওগাঁর মান্দা তেতুলিয়া বিএমসি কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ ছিদ্দিকুর রহমান, ওই কলেজের পদার্থ বিভাগের প্রভাষক আল হোসেন মন্ডল,রানীনগর মহিলা কলেজের প্রভাষক বেলায়েত হোসেন,ডিবেট ক্লাব অব নওগাঁর সাধারণ সম্পাদক মাঈন আল মোবাশি^র,ডিবেটারস ফোরামের পরিচালক মোঃ রাশিদ আঞ্জুম তন্ময়, মার্জিয়া বিনতে বারি। মডারেটর হিসাবে দায়িত্ব পালন কলেন প্রফেসর শরিফুল ইসলাম খাঁন।

”শিক্ষক নয়, শিক্ষা ব্যবস্থার ত্রুটির কারনেই বিজ্ঞানের শিক্ষার্থী কমছে” কুসংস্কার দূরীকরনে বিজ্ঞানের চেয়ে সামাজিক আন্দোলন জরুরী ” ” বিজ্ঞান ও গবেষণার প্রতি অবহেলাই তৃতীয় বিশে^র পশ্চাৎপদতার কারণ”সহ কয়েকটি বিষয় নিয়ে শুরু হয় ক্ষুদে তার্কিকদের যুক্তি তর্ক। ক্ষুদে তার্কিকরা এসব বিষয়ে সাবটাব পদ্ধতিতে  প্রথম রাউন্ডে  পক্ষে-বিপক্ষে তাদের নানা যুক্তি তুলে ধরে। সঙ্গে চলে পক্ষে-বিপক্ষে জোড়ালো তর্ক বিতর্ক। তিন ধাপে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে অনুষ্ঠিত হয় বিতর্ক। বিকেলে প্রাণবন্ত এই বিতর্ক প্রতিযোগিতার সমাপণী ও পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা তথ্য অফিসারের কার্যালয়ের উপপরিচালক আবু সালেহ মোঃ মাসুদুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সমকাল সুহৃদ জেলা শাখার সভাপতি গুলশান আরা।

সমাপণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি আবু সালেহ মোঃ মাসুদুল ইসলাম বলেন আজকে যারা শিক্ষার্থী তারাই আগামী দিনের দেশকে নের্তৃত্ব দেবে। বিতর্কের মাধ্যমে আগামী দিনের সঠিক নেতৃত্ব গড়ে উঠবে। বিজ্ঞান চর্চা বিজ্ঞানকে  শিক্ষার্থীদের কাছে আরও সহজ  ও সহজলভ্য করে তুলতে বিএফএফ-সমকাল যে উদ্যোগ নিয়েছে তা সত্যিই প্রশংসার দাবী রাখে। প্রানবন্ত এমন  অনুষ্ঠানের আয়োজন করায় তিনি সমকালকে ধন্যবাদ জানান।

দিনব্যাপী বিতর্ক উৎসবের দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে মডারেটর শরিফুল ইসলাম খাঁন বলেন বিতর্ক মানে শুধু তর্ক করা না। বির্তক মানে যুক্তি। প্রতিটি বিষয়ে পক্ষে -বিপক্ষে প্রাণবন্ত ও অখাট্য যুক্তি তুলে ধরতে হবে। আর যুক্তির মাধ্যমেই প্রকৃত সত্য গ্রহন করার মধ্য দিয়ে দেশ ও জাতি এগিয়ে যাবে। তিনি প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহনকারীদের উদ্দেশ্যে আরো বলেন ভবিষ্যতে যে কোন বির্তক প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার আগে নিজেকে বিভিন্নভাবে প্রস্তুত করতে হবে। বেশী বেশী করে পাঠ্য বইয়ের পাশাপাশি বিভিন্ন ধরেনের বই,পত্রিকা ও ম্যাগাজিন পড়তে হবে। দীর্ঘদিন ধরে বিএফএফ-সমকাল এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করার কারনে বিজ্ঞানের প্রতি শিক্ষার্থীদের আগ্রহ আগের তুলনায় বেড়েছে। তিনি আয়োজকদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

বিচারক প্যানেলের সভাপতি মোঃ ছিদ্দিুকুর রহমান বলেন,বিতকের্র মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা তাদের মেধার বিকাশ ঘটাতে পারবে। বিশেষ করে বিজ্ঞান বিষয়ক বিতর্ক শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিজ্ঞানের প্রতি গবেষনাধর্মী,উদ্ভাবনী ও যুক্তিবাদী হিসেবে তাদের মানসিকতার বিকাশ ঘটাবে। এধরনের বিতর্কে অংশ নিয়ে  শিক্ষার্থীরা যুক্তি তর্ক আয়ত্ব করে নিজেদের মেধার বিকাশ ঘটানোর সুযোগ পাচ্ছে। এজন্য গত কয়েক বছর ধরে সমকালের এই আয়োজন শিক্ষার্থীদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি বিশ^জিত সরকার মনি,একুশে পরিষদ নওগাঁর সভাপতি অ্যাডভোকেট ডিএম আব্দুল বারী, সমকাল নওগাঁ প্রতিনিধি এম আর ইসলাম রতন। বিতর্ক উৎসবের সাবির্ক সহযোগিতায় ছিলেন জেলা সুহৃদের সাংগঠনিক সম্পাদক সেতু ইসলাম,সহ-সম্পাদক কাজী নাজমুন নাহার,সদস্য অনীক ভূবন সাহা,শাইখ তাজোয়ার জিয়ন,তৌফিকুল আলম ও তানজিম বারী।